বড় রদবদলের পথে হোয়াটস অ্যাপ! জেনে নিন কী?

ফেসবুকে শেয়ার করুন টুইট শেয়ার রেডিট কমেন্ট
বড় রদবদলের পথে হোয়াটস অ্যাপ! জেনে  নিন কী?

চলতি সপ্তাহ থেকেই নতুন নিয়ম কার্যকর যে করে দেওয়া হচ্ছে

এমনটা যে হতে পারে তা জানা ছিল আগেই। এবার হয়ে গেল আনুষ্ঠানিক ঘোষণাটুকুও। হোয়াটস অ্যাপ বুধবার জানিয়ে দিল এখন থেকে ভারতীয় গ্রাহকরা একটি মেসেজ (তা সে লেখা ছবি বা ভিডিও যাই হোক না কেন) , একসঙ্গে কুড়ি বারের বেশি পাঠাতে পারবেন না। এই অ্যাপ ব্যবহার করে বিভ্রান্তিকর খবর এবং ছবি ছড়ানোর অভিযোগ নতুন কিছু নয়। দেশের বিভিন্ন জায়গায় বেশ কয়েকটি অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেছে এই কারণে। কখনও ছেলেধরা সন্দেহে মার খেতে হয়েছে নির্দোষ ব্যক্তিকে কখনও আবার তার চেয়েও খারাপ কোনও ঘটনা ঘটেছে। আর তাই নড়েচড়ে বসে কেন্দ্রীয় সরকার। ‘বার্তা’ পেয়ে হোয়াটস অ্যাপ এই নতুন নিয়মের কথা জানিয়ে দিল।

হোয়াটস অ্যাপ এখন ফেসবুক অধিগৃহীত সংস্থা। আর ভারতে প্রায় দুশো মিলিয়ন গ্রাহক এই অ্যাপ নিয়মিত ব্যবহার করেন।

 চলতি সপ্তাহ থেকেই নতুন নিয়ম কার্যকর যে করে দেওয়া হচ্ছে সে কথা জানানোর পাশাপাশি একটি ভিডিওপোস্ট করেছে সংস্থা। তাতে হাতে কলমে ফেক নিউজ কীভাবে ছড়িয়ে পড়ে তা দেখানো হয়েছে। এর পাশাপাশি   আরও একটি ভিডিও নিয়ে আসতে চলেছে হোয়াটস অ্যাপ। তাতে বলা থাকবে  হোয়াটস অ্যাপে আসা কোনও কিছুকেই একবারে বিশ্বাস করা যাবে  না। আর তাছাড়া মেসেজটি কার তৈরি সেটা নিয়ে সংশয় থাকলে আরও বেশি করে সতর্ক হওয়ার  কথাও বলা হবে।

কিন্তু কেন এই নতুন নিয়ম জারি হল? খবরে প্রকাশ গুজব ছড়ানোর মতো ঘটনা বাড়তে থাকায় ডট বিভিন্ন টেলিকম সংস্থাকে ফেসবুক এবং হোয়াটস অ্যাপ ব্লক করে দেওয়ার ব্যাপারে চিন্তা  ভাবনা করতে বলেছিল। আর তারপরই এমন সিদ্ধান্ত নিল হোয়াটস অ্যাপ। তবে বিপুল পরিমাণ গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখে  ফেসবুক এবং হোয়াটস অ্যাপ ব্লক করতে রাজি হয়নি টেলিকম সংস্থাগুলি। এখন সেই পরিস্থিতি বেশ কিছুটা বদলে গেল। তবে এই নতুন ব্যবস্থা গুজব নিয়ন্ত্রণে ইতিবাচক ভূমিকা নেবে কিনা সেটাই এখন দেখার।                     

কমেন্ট

প্রযুক্তির সাম্প্রতিক খবর আর রিভিউস জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube.

 
 

বিজ্ঞাপন